রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১১

গল্পের পেছনের গল্প

দেশে থাকতে বিটিভির একটা ডকু-বিজ্ঞাপনের দেখেছিলাম বারান্দায় অস্থির ভাবে পায়চারি করছেন আবুল খায়ের। ঘরের ভেতর থেকে হঠাৎ করে ভেসে আসলো সদ্য জন্ম নেয়া শিশুর কান্না। দরজা খুলে দাই এসে বল্লো মেয়ে হয়েছে। আবুল খায়ের সংগে থাকা নাতিকে নিয়ে মোনাজাত করছেন। দৃশ্যটার মাঝে অন্যরকম এক পরিতৃপ্তি আছে। সিনেমা বা নাটকে আমরা প্রায়শই দেখি সদ্য জন্ম নেয়া শিশুকে কোলে নিয়ে পিতার মুখ, চারপাশে হাসি মাখা একগাদা মুখ। দূর্ভাগ্য এর কোনোটাই আমার ভাগ্যে লেখা ছিলো না ।  দু ছেলের জন্ম নেবার সময় মোনাজাত করবার মতো দাদা পায়নি আমার ছেলেরা, পাশে পায়নি একদল স্বজনের হাসিমাখা মুখ। পাশে ছিলাম শুধুই এই মানুষটি, কান্নারত আমার বউ আর মাতৃরুপী ধাত্রী।


ফেসবুকে বউ এর লেখা নোটখানা তুলে দিলাম

Premature babys are called miracle baby,they come before time ,have to struggle to breathe,eat everything.My little boy came early on 31 wks weighing only 1.7 kg,stayed at NICU for 35 days ,but he is real fighter! He came back happy and healthy.My millions gratitudes to Almighty Allah! My gratitudes to my husband Mahbub Abdullah who stood beside me all the time.Thanks to the doctors and nurses of Canberra Hospital and Calvary John James Hospital.thanks to my Family and friends who supported me ,encouraged me through this journey.Special thanks to Shampa apa and Shuppy vai to support us in our difficult time.

Today he is one year old ,can't believe how time pass so fast.Happy Birthday Shuvro baba .Be a real human being ......Fight for humanity.....from Mamma!

আমার ছোট বাবার জন্ম নেবার পর যখন হজ্বপালনরত মাকে ফোন দিয়েছিলাম উনি বিশ্বাস করতে পারেনি। দেশে শশুড় বাবাকে কে ফোন দেবার পর উনিও বিশ্বাস করতে পারেনি। আমরা কেউই আসলে প্রস্তুত ছিলাম না এ মুহুর্তের জন্য। কথা ছিলো ফেব্রুয়ারীর ১ তারিখে আশে পাশে আসবে আমার ছোট বাবা কিন্তু তর সইতে না পেরে উনি চলে এসেছিলেন ৪ ডিসেম্বরে।

নতুন বাসা নিয়েছি, নতুন চাকরি শুরু করেছি। আশে পাশে সব কিছুই চরম আগোছালো। হঠাৎই বউ বল্লো হাসাপাতালে যাবে, ব্লিডিং হচ্ছে। হাসপাতালে দিয়ে এসে ২ বছরের ছোট্ট ছেলেটিকে নিয়ে বাসায় একা। হঠাৎ ভোরের দিকে হাসপাতাল থেকে ফোন। ছেলেটিকে এক বন্ধুর বাসায় রেখে হাসপাতালে গেলাম। সব কিছু কেমন যেনো ঘোরের মধ্যে ঘটে গেলো। আমার চোখের সামনে আমার ছেলের জন্ম হলো। বাচ্চা যেহেতু প্রি ম্যাচিউর ছিলো সে জন্য যুদ্ধ সাজে একদল নার্স তৈড়ি ছিলো সব কিছুর জন্য। জন্ম নেবার সাথে সাথে ছোঁ মেরে ওকে তুলে নিয়ে এখানে ওখানে তার লাগিয়ে, মুখে অক্সিজেন মাস্ক লাগিয়ে, এখানে ওখানে ফুটো করে পাইপ লাগিয়ে সোজা ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিটে নিয়ে গেলো ওরা। ঘন্টা দুয়েক পর ছেলেকে দেখতে গেলাম। এক গাদা ভয়ংকর দর্শন যন্ত্রের মাঝে ইনকিউবেটরের শুয়ে আছে আমার ছোট্ট ছেলেটা।  দেখে কান্না চলে আসছিলো বার বার। কিছুদিন পর আরেক হাসপাতালে ওকে নেয়া হলো। এভাবে ৩৫ টি দিন বাবা-মাকে ছাড়া ছিলো আমার ছোট্ট বাবাটা।

সকাল কাজের যাবার সময় একা একা দেখে আসতাম ছেলেটাকে। হাত বাড়িয়ে ধরতাম ছোট্ট হাত দুটোকে। বিকেলে ওর মাকে নিয়ে আবার যেতাম ওকে দেখতে। মা ছেলের জন্য দুধ নিয়ে যেতো। কোলে শুইয়ে দুধ খাইয়ে আবার চলে আসতাম। মন পরে থাকতো ছেলের কাছে। ৩৫ টি দিন যে কি অসহ্যভাবে কেটেছিলো তা বোঝাবার নয়। পুতুলের মতো ছোট্ট বাবার চেহারাটা সময় সময় চোখের সামনে ঘুড়ে বেড়াতো। দিন গুনতাম কবে আমার বাবাটাকে বাসায় নিয়ে যাবো।

অস্ট্রেলিয়া না হয়ে যদি ছেলে আমার বাংলাদেশে জন্মাতো তবে এ ছেলেকে বাঁচানো সম্ভব ছিলো না আদৌ। সেটা আর্থিক ও দেশের প্রযুক্তিগত সীমাব্ধতার কারনেই। প্রি ম্যাচিউর বাচ্চাদের অনেক রকম সমস্যা হতে পারে, মানসিক বা শারিরীক। আল্লাহর রহমতে আমার ছোট বাবা " শুভ্রের " কোনোটাই হয়নি। আসলে আমরা  অনেক চিন্তায় ছিলাম এসব নিয়ে ।

 মিড ওয়াইফ আর নার্সরা যে কতো মমতাময়ী ও পেশাদার দক্ষ হতে পারে তা এদের না দেখলে বিশ্বাস করতাম না কখনোই।

আজ সেই ছোট্ট বাবা "শুভ্রের" প্রথম জন্মদিন। কথাই শুনতে চায় না, চরম দুস্ট, বেশী চন্চল। টুক টুক করে হেঁটে বেরায় সারা বাসা।


এ লেখাটা আমি আমার দু ছেলের দুই মিডওয়াইফ আর মায়ের স্নেহ দিয়ে দেখে শুনে রাখা নার্সদের উদ্দেশ্য উৎসগ করছি। আমি, আমার বউ, আমার দু ছেলে এদের ঋন কোনো দিনই শোধ করতে পারবো না।

৪টি মন্তব্য :

  1. আহা -- মা বাবার কাছে সন্তান যে কি জিনিষ সেটা বাবা-মা না হলে বোঝা যায় না। আপনার ছেলেরা আপনার মনের গভীরতাকে বুঝতে পারুক, ভাল থাকুক -- এটাই কামনা।

    উত্তরমুছুন

আপনার মন্তব্য পেলে খুশি হবো, সে যত তিক্তই হোক না কেনো।
পোস্টে মন্তব্যের দায়-দায়িত্ব একান্তই মন্তব্যকারীর। মন্তব্য মডারেশন আমি করি না, তবে অগ্রহনযোগ্য ( আমার বিবেচনায় ) কোনো মন্তব্য আসলে তা মুছে দেয়া হবে সহাস্য চিত্তে।