রবিবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৫

কৈশরে ফেরত গিয়েছিলাম

কোন মন্তব্য নেই :
প্রায় ১ যুগ পর LRB এর কনসার্টে গিয়ে যেনো কৈশরে ফেরত গিয়েছিলাম । ওজন বেড়ে যাওয়ায় নাচা নাচি করার ক্ষমতা চলে গেলেও ছোট ছেলে শুভ্র সেটা পুষিয়ে দিয়েছিল। কথা ছিল কনসার্ট শুরু হবে সন্ধ্যা ৬ঃ৩০ এ ! কিন্তু আমাদের যা হয় , শুরু হতে হতে সেই ৭ঃ১৫ । আজন্ম উর্দি শাসনে বেড়ে উঠা মানুষ আমি , সময়ের কাজ সময়ে শুরু না হলে প্রচন্ড বিরক্ত লাগে । আশা করেছিলাম অনেক ভিড় হবে , পা ফেলার জায়গা থাকবে না। সেটা অবশ্য হয়নি । তারপরও অনেক LRB ভক্ত ছিল সেখানে , বস বলে কথা !! দু ঘণ্টা কিভাবে যে কেটে গিয়েছিল টেরই পাইনি । পেশাদার সাউন্ড & লাইট ইঞ্জিনিয়ার থাকাতে সব কিছুতে পেশাদারীত্বের ছাপ ছিল।

শুভ্র
বস আইয়ুব বাচ্চু সেই আগের মতোই আছেন । টানা গান গেয়ে সবাইকে মাতিয়েছেন। তবে মাঝে মাঝেই মনে হয়েছে গানের চাইতে বাজনা বেশি শোনা যাচ্ছে , তার পরো সব কিছু মিলিয়ে দারুন সময় কেটেছে ।
দারুন এই সন্ধ্যা উপহার দেবার জন্য বাংলাদেশ অস্ট্রেলিয়া এসোসিয়েশন ক্যানবেরার প্রত্যেকটি সদস্যদের সাধুবাদ না জানালে বিশাল পাপ হয়ে যাবে ।
ক্যানবেরার অন্য আর দশটি অনুষ্ঠানের মতো এবারেও সামনের সারিতে বসা ছিলেন আমাদের বাংলাদেশি ডাক্তাররা। দেখতে বেশ মজা লাগে।
বস

শুক্রবার, ৭ মার্চ, ২০১৪

পুলিশ ও পদোন্নতি

৩টি মন্তব্য :
কোম্পানি আমলে স্থানীয়দের সেপাই পদে নিয়োগ করা হতো , একটু লেখাপড়া জানলে দারোগা । এএসপি পদে সাদা ছোকড়া আসতো বিলেত থেকে, এসেই সবার দন্ড মুন্ডের মালিক বলে যেতো । পরবর্তীতে নবাব /রাজা /মহা রাজাদের ছেলেরা ঈন্ডিয়ান পুলিশ সার্ভিসের মাধ্যমে বড় পদে আসতে শুরু করে কিন্তু উঁচু পদ্গুলো ছিল রাজার জাত সাদাদের জন্য বরাদ্দ । সে সময় সেপাইরা স্বপ্ন দেখতো দারোগা হবার - দারোগারা স্বপ্ন দেখতো ডিএসপি হবার ।

কোম্পানি আমল - পাকিস্থান আমল শেষ করে বাংলাদেশ আমল শুরু হয়েছে ; কিন্তু সেই আচার এখনো রয়ে গেছে ।
এখন গ্রামের এসএসসি মায় বিএ পাশ করা ছেলেরা পুলিশ লাইনে খালি গায়ে দাঁড়ায় কনস্টেবলের চাকুরির জন্য। একটু পড়াশোনা করা ছেলেরা যার এসআই পদের জন্য । বিশ্ববিদ্যালয় পাশ করারা বিসিএস দিয়ে এএসপি হয় । এখনো সেপাইরা স্বপ্ন দেখে এসআই হবার জন্য , এসআই রা স্বপ্ন দেখে এএসপি হবার জন্য । বাস্তবে সেপাইরা কখনোই ইন্সপেক্টর পদের পর যেতে পারে না , এসআইরা হতে পারে বড় জোর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সে যতই যোগ্যতা থাকুক না কেন । উঁচু পদ গুলো বরাদ্দ থাকে বিসিএস দিয়ে আসাদের জন্য ।এ ব্যপারে আমাদের বাংলাদেশ পড়ে আছে সেই কোম্পানির আমলে ।

পিয়ারপি এর নামে কোটি কোটি টাকা খরচ করা হচ্ছে পুলিশের আধুনিকায়নের নামে কিন্তু পদোন্নতির এ ব্যপারে আধুনিকায়নের ব্যপারে সবাই ইচ্ছে করেই যেন ঊদাসীন । কোম্পানির আমলে যখন পুলিশের এ ৩ স্তরের নিয়োগ ব্যবস্থা ছিল , তাদের নিজের দেশ বিলাতেই ছিল অন্য ব্যবস্থা । সেখানে কনস্টেবল পদে সবাই যোগ দিত , নিজ যোগ্যতা অনুসারে পদোন্নতি পেয়ে সবাই সামনে এগুতো । নিজের দেশে এক স্তর রেখে কলোনিগুলোতে ৩ স্তর !

উদাহরণ হিসেবে অস্ট্রেলিয়াকে আনছি , এখানে সবাই কনস্টেবল পদে যোগ দেয় । ইন্সপেক্টর পদে যখন পৌঁছয় তখন তাদের চাকুরির বয়স সবারই ১৫/২০ বছর হয়ে যায় , পুলিশ সুপার থেকে কমিশনারদের চাকুরির বয়স ৩০ হয়ে যায় । বাংলাদেশে সদ্য বিশ্ববিদ্যালয় পাশ করা এক ছেলে বা মেয়ে চাকুরির ৩/৪ বছরের মাথায় যে পদ ও দ্বায়িত্বে আসে অস্ট্রেলিয়ার একজন অফিসার সে পদে আসে ১৫/২০ বছর চাকুরি করবার পর । এখানে একজন কন্সটবেল যোগ্যতা বলে পুলিশ কমিশনার হতে পারে কিন্তু বাংলাদেশে বড় জোড় ইন্সপেক্টর !

আধুনিকায়ন কি এখানে আসতে পারে না ?

মঙ্গলবার, ৭ মে, ২০১৩

ফেবু স্ট্যাটাস মালা ১

২টি মন্তব্য :

নিজের কোনও স্ট্যাটাস না থাকলেও ফেসবুকে স্ট্যাটাস লিখি, গত ১ মাসে লেখাগুলো তুলে রাখলাম। পুরাই আব জাপ
 
১। ১জন মৃত মানুষ শুধুই কি ১ টি সংখ্যা ? হয়তো এই মানুষটি কারো আদরের সন্তান, কারো স্নেহময় পিতা , কারো প্রেমময় জীবনসংগী, কারো বন্ধু। রক্ত ভেজা মেঝেতে মুখ থুবড়ে পরে থাকা মানুষটির মৃত্যু আমাকে উল্লসিত করে না - সে আমার স্বপক্ষের হোক আর বিপক্ষেরই হোক। কোনো মৃত্যুই আমাকে উল্লসিত করে না।
২। একজন মানুষের অধঃপতনে নানা কারন থাকে। পিতা/মাতার জিনগত উত্তরাধিকার মানুষের আচরন - ব্যবহারে প্রভাব রাখে। এটা প্রমানিত, বিশ্বাস না করলে সহজ রাস্তায় উইকি ঘাঁইটা দেখেন। বিভিন্ন কলাম - টক শো - ফেসবুক - মিডিয়ায় লেখা পড়া জানা তথাকথিত শিক্ষিত অনেক মানুষের কথা - আচরন - ব্যবহার দেখে মনে হয় এদের জন্মের দোষ আছে; সৎও ভালো পিতা/মাতার সন্তানরা জানোয়ার হয় না। ফেসবুকের কল‌্যানে দেশ - বিদেশে থাকা, নিজে পেশায় সফল হওয়া, নামের আগে ড. লাগানো অনেক জানোয়ার দেখছি। পোষাক জীবন যাপনে আধুনিক কিন্তু ভেতরে ভন্ডামী শয়তানি আর কপটতায় পূর্ন। কন্ডম না ফাটলে এই সব জানোয়ারের জন্ম হইতো না।

৩।
যুদ্ধের বড় একটা ভুল হলো শত্রুকে হেয় করে দেখা বা অবহেলা করে মস্করা করা। জামাত - সুন্নাহ - হেফাজতীরা শতাংশ হিসেবে অল্প কিন্তু ধ্বংশ চালাতে সংখ্যায় অনেক। সামনে আরো আসছে , আরো ভয়ংকর খারাপ।

৪। বীষদাঁত না ভেঙে সাপ নিয়ে খেলতে গেলে সে সাপ কামড়াবেই