বুধবার, ৩ নভেম্বর, ২০১০

তিন নিখোঁজ আতরাফ ও আশরাফের নিখোঁজ সারমেয়

প্রজাতন্ত্রের কোনো সংস্থা যখন কোনো ঘটনার সাথে যুক্ত থাকে তখন সেই ঘটনার দায়ভার সরকারের উপর বর্তায়, তবে তৃতীয় বিশ্বের ( মুলত ) তথাকথিত গনতান্ত্রিক সরকার গুলো বরাবরই এই দায়ভার এড়িয়ে যায়। আবার সরকার যখন নিজেই এইসব ঘটনার সাথে যুক্ত থাকে তখন দায় ভারের প্রশ্ন না তুলে সরকারের নৈতিক ও আইন গত বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা যেতে পারে। দেশে অনেক নিখোঁজ ঘটনার সাথেই সরকার ও তার সংস্থা যুক্ত যা জানা কিন্তু প্রমান করা দূসাধ্য যখন বিচার ব্যবস্থাই দূর্ণীতিগস্থ ও দলীয় ভাবধারার চালিত।

রূপগঞ্জের ঘটনা আবারো প্রমাণ করে দিলো যে রাস্ট্রের ভেতরের কালো শক্তি কত শক্তিশালী। সরকার বা রাস্ট্র এখানে পুতুল মাত্র। সাংবাধিক ভাবে সকল নাগরিক সমান হলেও এটা আদৌ কখনো সেটা দাঁড়াতে পারেনি। এই ব্যবধানটা এতোই নগ্ন যে সেখানে প্রশ্ন তুল্লে জীবন নিয়ে দেশ ছাড়তে হয়।

এ দেশে এখনো দিনে দুপুরে একজন নাগরিককে অন্য দেশের গোয়েন্দা সংস্থার হুকুমে বিনা পরওয়ানায় অন্য দেশের বিমানে তুলে দেয়া যায়, এ দেশে এখনো বিনা পরওয়ানায় একজন নাগরিককে ক্যাম্পে তুলে নিয়ে পেটানো যায়, এ দেশে এখনো একজন প্রতিবাদী নাগরিককে প্রকাশ্যে তুলে নিয়ে রাতের আঁধারে গুলি করে মাঠে ফেলে রাখা যায়। বিচার ব্যবস্থা এখানে নিশ্চুপ থাকে। সুশীল সমাজ নামক নপুংশকরা এটা দেখেও কাপুরুষের মতো চুপ থাকে।ঢাকা ক্যান্টের ডিজিএফআই এর এইচ কিউ এর রক্তমাখা দেয়ালগুলো এখনো রক্তে রাঙানো হয় !! এগুলো জানা কিন্তু প্রমান করার দায় ও সাহস এ রাস্ট্রের নাই।

রূপগঞ্জে তিনটা মানুষ নিখোঁজ। আতরাফ গোত্রীয় এই তিন জনের নাম সাইদুল ইসলাম, আবদুল আলীম মাসুদ এবং শমশের মোল্লা ।  দেশে কোনো আশরাফের সারমেয় নন্দন হারিয়ে গেলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সেটি উদ্ধারে আদা জল খেয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে সেখানে তিনজন জলজ্যান্ত মানুষের কোনো খোঁজ তারা বের করতে পারছে না, বিষয়টি ভাবতেই তো কেমন লাগে!  পত্রিকায় বলা হয়েছে, এ তিনজন যুবকের লাশ রেবের গাড়িতে তোলার প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী আছে। মাসুদের বাবা নিজে তাঁর গুলিবিদ্ধ ছেলেকে রেবের গাড়িতে তুলতে দেখেছেন বলে জানিয়েছেন। নিখোঁজ ব্যক্তিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী খুঁজে এনে তাদের স্বজনদের কাছে ফিরিয়ে দেবে, এমনটাই একটি সুস্থ স্বাভাবিক রাষ্ট্রব্যবস্থার প্রত্যাশা। কিন্তু এখানে দেখা যাচ্ছে, খুঁজে দেবে কী, বরং মানুষকে নিখোঁজ করার অভিযোগই উঠছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের প্রতি। ( এ অংশটুকু আরিফ জেবতিকের নোট থেকে নেয়া হয়েছে )।

এই নাকি গনপ্রজাতন্ত্রি বাংলাদেশ যেকানে "গণ" দেরও কোনো স্থান নেই।

২টি মন্তব্য :

  1. এই সব একদম গাসহা ব্যাপার হয়ে দাড়িয়েছে|শুধু তাদের স্বজনরা বাদে, কিছুদিন পর এই নিখোজ মানুষ গুলোকে কেউ মনেও রাখবেনা |এই 'জন'মানুষের কথা পরে থাকবে, পরতিকার আর্কাইভে, আপনার আমার মতো কতগুলো অভিমানী মানুষের ব্লগে|

    উত্তর দিনমুছুন

আপনার মন্তব্য পেলে খুশি হবো, সে যত তিক্তই হোক না কেনো।
পোস্টে মন্তব্যের দায়-দায়িত্ব একান্তই মন্তব্যকারীর। মন্তব্য মডারেশন আমি করি না, তবে অগ্রহনযোগ্য ( আমার বিবেচনায় ) কোনো মন্তব্য আসলে তা মুছে দেয়া হবে সহাস্য চিত্তে।