সোমবার, ১৭ নভেম্বর, ২০০৮

ক্রেডিট ছিনতাইয়ের নোংরা রাজনীতির কাছে যখন পরাজিত হয় মানবতার বাণী

সামহোয়্যার ইন ব্লগে ব্লগার ভাস্কর চৌধুরির পোস্ট পড়ে সযতনে এড়িয়ে গিয়েছিলাম। মানবীর পোস্ট পড়েও এড়িয়ে যেতে চেয়েছিলাম। নিজের স্বামর্থের দিকটা চিন্তা করেই অনেক সময় এড়িয়ে যাই। এড়িয়ে যেতে চাইলেও অনেকসময়ই এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না। দেশ হতে হাজার মাইল দূরে বাস করে কত টুকুই বা করতে পারি ? হয়তো কিছু আবেগ ভরা বাক্যবর্ষন করে নিজের বিবেককে বোঝানোর চেস্টা, কখনো কিছু টাকা দান করে নিজেকে বাহাবা দেবার শিশুসুলভ চেস্টা। তারপরো অনেক মানুষ থেমে থাকে না। নিজের স্বামর্থের শেষ বিন্দু দিয়ে চেস্টা চালান তারা কোনো রকম প্রতিদানের আশা না করেই।
যে যার মতো চেস্টা চালান। কেউ বা ব্লগে পোস্ট দিয়ে সচেতনতা স্মৃস্টি করে , কেউবা ইমেইল করে প্রচার চালিয়ে, কেউবা ফান্ড রেইজ করে, কেউবা মাঠে নেমে স্বশরীরে।
এর মধ্যেও শুরু হয় ক্রেডিট নেবার নোংরা চেস্টা। ক্রেডিট না পেয়ে কারো শিশুসুলভ আচরন ! মানবীর পোস্টে যেটা লক্ষ্য করেছি। মানবীর শেষ পোস্ট আমার কাছে ভালো লাগেনি। আমারব্লগে ফান্ড রেইজ করার চেস্টা উনি বেমালুম চেপে করলেন সামহোয়্যারইন ব্লগকে প্রশংসা ! সামহোয়্যার ব্লগ ছাড়াও অন্য ব্লগের অবদানকে উনি এড়িয়ে গেলেন অনেকের দেখিয়ে দেয়া সত্বেও। এটা না করলেই ভালো হতো। মূল সমস্যা শুরু হলো যখন আরিফ জেবতিক ' সাহায্য করার উদ্যোগ প্রত্যাহার করলাম " জাতীয় পোস্ট দিয়ে যেকোনো উদ্যোগ থেকে নিজেকে প্রতাহার করলেন, প্রকারন্তরে অন্যদেরকেও করতে বাধ্য করলেন। "আমার ব্লগ" থেকেও ফান্ড রেইজ করার ডোনেশন লিংক বন্ধ করে দেয়া হলো সাথে সাথে। যারা সেখানে জনির জন্য কিছু ডোনেট করেছিলেন তাদের সাথে কোনোরকম যোগাযোগও করা হলো না। বলা দরকার, জনির জন্য তোলা টাকা এখনো জনির কাছে পৌছেনি।
জনি যখন ঠান্ডায় নিউমোনিয়ায় ভুগছে, তখন অনেকে ভুগছিলেন ইগো সমস্যায়। জনি যখন ক্ষুধার তাড়নায় মুড়ি খেয়ে বাঁচার চেস্টায় তখন আমরা অনেকেই ব্যস্ত ছিলাম প্লাস/মাইনাস দেবার প্রতোযোগীতায়। জনি যখন ঠান্ডা মাটিতে শুয়ে কাতরাচ্ছে তখন আমরা অনেকেই ব্যস্ত ছিলাম কাদা ছোড়াছুড়িতে। অথচ সব কিছু ভুলে আমাদের সবার উচিত ছিলো জনির পাশে দাঁড়ানো। ছোট্ট শিশুটির জীবনের চাইতেও জরুরী ছিলো আমাদের ইগো। জনির জন্য পর্যাপ্ত সাহায্য এসে পৌছিয়েছে বলে ঘোষনা করে সাহায্যের উদ্যোগ বন্ধ করতেও আমাদের বিবেকে বাধেনি।
এর পরো কি জনির জন্য কিছু করার উদ্যোগ থেমে থেকেছে ? থামেনি, থামবেও না। যারা সত্যিকারেই কিছু করার ইচ্ছে রাখেন তারা নিভৃতে কাজ করে যাবেন। যারা দেবার তারা দিবেন কোনো রকম ক্রেডিটের আশা না করেই। ক্রেডিট নেবার রাজনীতির কাছে "জনির" জন্য কিছু করার উদ্যোগ থেমে থাকবে না, কিন্তু থেমে যায় কিছু সাধারন মানুষের কিছু করার আকুতি। যে মানুষটি জনির বাড়ীতে তার দুধের সংস্থান করার জন্য গাভী পৌঁছে দিয়েছেন তিনিতো নাম কামানোর জন্য কিছু করেন নি ! জনির জন্য সব করা হয়েছে বলে উনার সাহায্য বন্ধ করেননি ! তবে আমরাইবা কেনো বন্ধ করবো ?
ছবিটির দিকে তাকিয়ে থাকি। অসহায় ক্রোধে মনটা ভরে উঠে।
জনি কি তার মায়ের হত্যার বিচার পাবে ?
জনি ও তার ছোট্ট বোনটি কি একটি সুন্দর জীবন ফীরে পাবে ?
অল্প সময়ের জন্য নিজের ইগোকে ভুলে, নেতা হবার শিশুসুলভ ভাবনা কে পাশে সরিয়ে রেখে কি আমরা মানবতার কথা ভাবতে পারি না ?

1 টি মন্তব্য :

  1. কি হইল ভাই। আপনার ব্লগের ফিড বন্ধ করলেন ক্যান? কি কি নতুন পোস্ট লিখতাছেন টের পাইতাছি না।

    উত্তর দিনমুছুন

আপনার মন্তব্য পেলে খুশি হবো, সে যত তিক্তই হোক না কেনো।
পোস্টে মন্তব্যের দায়-দায়িত্ব একান্তই মন্তব্যকারীর। মন্তব্য মডারেশন আমি করি না, তবে অগ্রহনযোগ্য ( আমার বিবেচনায় ) কোনো মন্তব্য আসলে তা মুছে দেয়া হবে সহাস্য চিত্তে।