সোমবার, ১৫ অক্টোবর, ২০০৭

ঈদ কাহিনী

এবার উইকেন্ড থাকাতে অস্ট্রেলিয়ার আকাশে এবার একবারই চাঁদ দেখা গিয়েছে। ভাগ্য ভালো উইকডেইজ ছিলো না, নাহলে অস্ট্রেলিয়ার আকাশে ২ টি ঈদের চাঁদ উঠতো, আমরা ২ টি ঈদ করতাম, ২ বার ঈদের সেমাই খেতাম, ২ বার হাতে মেহেদী দিতাম।
আফসোস; সে স্বপ্ন পূরন হোলো না।

সকালে উঠে পান্জাবী পাইতো গেনজি পাই না, গেন্জি পাইতো অন্তর্বাস পাই না । সবকিছু যখন হাতের কাছে পাবার পর পরি-মরি করে লাচ্চা-সেমাই খেয়ে মসজিদের উদ্দেশ্য ছোঁটন। বউয়ের আদেশ ছিলো নামাজের আগে ঝাল কিছু , মানে পোলাও-মাংস স্পর্শ করা যাবে না। উনার চোখের আড়ালে সে আদেশও ভংগ করলাম। ঈদ বলে কথা!

নামাজ পড়তে গিয়ে দেখলাম আরেক ঘটনা। ১৩ তাকবীরের ঈদের নামাজ, দেশে থাকতে পড়তাম ৬ তাকবীরের নামাজ , ক্যানবেরা এসে ১২ তাকবীর, এবার ১৩ তাকবীর। আশা করছি আগামী ঈদে ১৪ তাকবীরের নামাজ পড়বো, সুম্মা আমীন।

মসজিদে সামনের দিকে ছেলেরা, পেছনের দিকে মেয়েরা। ঈদে মেয়েরা দারুন সেজেছিলো, আমি চাহিয়া চাহিয়া দেখি, সব হূর পরী। ঈদের নামাজ শেষে বউ বলে পেছন ফীরে কি দেখছিলে !! আমি উদাস নয়নে বল্লাম তোমাকে খুঁজছিলাম, ওতো সুন্দরীর মাঝে হাড়িয়ে ফেলেছিলাম তোমাকে । বউতো আমার পুরা টাসকী ।

নামাজ শেষে দারুন সব মিস্টি, টার্কিশ-পাকি-আরবী দারুন দারুন সব মিস্টি। টার্কিশ-লেবানিজ মেয়েদের মতোই ইয়াম্মি। কয়টা যে সাবরেছিলাম সে মনে নেই। ভাগ্য ভালো ছোট বেলার মতো মিস্টি খেয়ে পান্জাবীতে হাত মুছিনি। মহা কেলেংকারী হয়ে যেতো তাহলে। এমনিতে আমার নাকি দূর্নাম আছে, আমি নিজে খাই আবার পান্জাবীকেও খাওয়াই।

ঈদের নামাজের পর যথারীতি কোলাকুলি। ভাবছিলাম ঈদের দিন , সবাই ভাই-ভাই বোন বোন। পেছনের দিকে গিয়ে হুরদের সাথেও কোলাকুলি সেরে নেই, কথায় আছে না হেলায় সুযোগ হাড়াতে নেই। তবে লেবু পোলাদের স্বাস্থ্য দেখে সাহসে কুলোয়নি। আরেকটা দীর্ঘ নিঃশ্বাষ ।

এখানে বসন্ত উতসব হচ্চে, "ফ্লোরিয়েড"। ১২ লাখ টিউলিপের এক ঐতিহাসিক জলছা। বউ সহ সেখানে ঘুরে দো জাহানের অশেষ সোয়াব কামিয়াব করে, ক্লান্ত-শ্রান্ত হয়ে বাসায় প্রত্যাবর্তন। বাসায় এসে আবার পোলাও-মাংস-কোরমা। এবার নিজের রান্না করা ( আসলে বউ রান্না করেছে, আমি পেঁয়াজ কেটেছি, পোলাওয়ের চাল ভেজেছি। সেটাও কি কম কথা !! )।

ঈদ শেষে সিনেমা দেখা ( বাংলা সিনেমা ছাড়া কি ঈদ সম্পুর্ন হয় !! , সেই যে বিটিভিতে ঈদের সময়কার বাংলা সিনেমা)।

দারুন এক ঈদ করলাম। বউ সহ প্রথমবারের মতো। একটু বেশী পোলাও-কোরমা খাওয়া হয়ে গিয়েছে মনে হচ্ছে।
ভুঁড়ি কি আরেকটুকু বাড়লো ?

৩টি মন্তব্য :

  1. প্রবাসে ঈদে মন ভালো রাখা খুব কঠিন ব্যাপার। বলছিলাম যারা একা থাকে তাদের কথা। আপনি তো এবার একা না। হা হা।
    ঈদে ভালো ছিলেন জেনে ভালো লাগলো। শুভকামনা।

    উত্তর দিনমুছুন
  2. দারুন ঈদ কেটেছে বলেই মনে হচ্ছে!

    আমার কপাল খারাপ, ঈদের নামাজ পড়া দুরে থাক। বউয়ের সাথে ঝগড়া করেই ঈদ মাটি হয়ে গেছে।

    উত্তর দিনমুছুন

আপনার মন্তব্য পেলে খুশি হবো, সে যত তিক্তই হোক না কেনো।
পোস্টে মন্তব্যের দায়-দায়িত্ব একান্তই মন্তব্যকারীর। মন্তব্য মডারেশন আমি করি না, তবে অগ্রহনযোগ্য ( আমার বিবেচনায় ) কোনো মন্তব্য আসলে তা মুছে দেয়া হবে সহাস্য চিত্তে।